কাপলদের জনপ্রিয়তার বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা কী? Love for Couples | Explained by Enayet Chowdhury

জানুয়ারি ২৪,২০২১ এ রাফায়াত রাকিব ভাইয়ের এবং ডিসেম্বর ০১,২০২০ Khudalagse এর ফাইজা ও সালমান সাদীর বিয়ের Vlog আপলোড করা হয়।

এরপরে বেশ আশ্চর্যজনক একটা ঘটনা ঘটে। আমরা রাফায়াত রাকিব ভাইয়ের বিয়ের আগের দুই মাসের ভিডিও এবং বিয়ের পরের ভিডিও যেখানে আপু নিজেও রাফায়েত ভাইয়ের সাথে Thumbnail এ ছিলেন, এই দুইটার মধ্যে তুলনা করে দেখতে পাই বিয়ের পরের ভ্লগগুলোতে চ্যানেলে ভিউ প্রায় ২৪০% বেড়ে গিয়েছে!

একই ঘটনা ফাইজার ক্ষেত্রেও ঘটছে, ফাইজার চ্যানেলে বিয়ের পরের যেসব ভ্লগে সালমানও ছিল থাম্বনেইলে সেখানে ভিউ প্রায় ৫০% বৃদ্ধি পাইসে!

আপনাদেরকে একটা তুলনা দেয়ার জন্য বলি একই সময়ের মধ্যে অন্য তিনটা চ্যানেল; Petuk Couple, Rafsan TheChotobhai এবং Adnan Faruque এর চ্যানেলে ভিউ বাড়ছে যথাক্রমে মাত্র  -১.৬৩%, ২১.১৭%  এবং ১৭.১১% যা নব্যবিবাহিত দুইটা চ্যানেলের থেকে বেশ কম এবং এই তিনজন হয় এখনো বিয়ে করে নাই কিংবা আগে থেকেই বিবাহিত!

এইটা প্রমাণ করে নতুন বিয়ে করা এবং চ্যানেলে ভিউ বেড়ে যাওয়ার মধ্যে একটা সিগনিফিকেন্ট কোরিলেশন বা সম্পর্ক থাকতে পারে। অন্যদিকে Pew Research Center এর একটা সার্ভে ডেটা অনুসারে, ৩৩% সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী অনলাইন কাপলদেরকে দুই চোখে দেখতে পারেনা!

তারমানে একদিকে একটা বড় অংশ কাপলদেরকে দেখতে পছন্দ করে যার প্রমাণ নব্যবিবাহিত 2 চ্যানেল এর ভিউ Astronomically বেড়ে যাওয়া, আবার একটা বড় অংশ কাপলদের দেখতেই পারে না। এই ক্যাঁচালটা আসলে কেন হইলো? মানুষ কেন একই সাথে কাপল ভ্লগারদেরকে ভালোবাসে আবার ঘৃণা করে?

বাংলাদেশে কাপল ভ্লগারদের ভবিষ্যৎ ফ্রেমওয়ার্কটা আসলে কী রকম হইতে পারে? সিঙ্গেল মানুষজন কেন কাপলদেরকে দেখলে হঠাৎ করে Irritated ফিল করতে পারে? এই পুরো ব্যাপারটাই আমি আজকের লেখায় ব্যাখ্যা করবো। তো চলুন শুরু করা যাক।

 

ঈদ মুবারাক ঈদ মুবারাক ঈদ মুবারাক। (*ংলা এ*ডেমির গুষ্ঠি গেলাই *_*)

এই ঈদে মানুষের যখন কোনো কাজ থাকেনা তখন তারা গরুকে মোটরসাইকেলে বসায়া বাসার দিকে রওনা দেয়, আর যাদের খায়াদায়া জীবনে আরো কোনো কাজ নাই তারা এই ধরনের ভিডিওগুলা না দেইখা ঈদের দিনে বইসা বইসা Couple Vlog নিয়া ভিডিও বানাইতে বসে।

🐸🐸

যদিও আমি এখন একটা পেরালাল ডাইমেনশনে আছি, আমার ডাইমেনশনে এখনো ঈদের দিন আসে নাই তবে এইটা কোনো ব্যাপার না।

 

প্রথমে আমি আপনাদেরকে Couple Vlogging সংক্রান্ত কিছু রিসার্চ টার্মিনলোজির সাথে পরিচয় করায়া দেই। মনে করেন Dhruv Rathee ঘুম থেকে উঠছে।

কী? তাকায়া আছো কেন?

আপনি শিওর থাকতে পারেন এ আসলেই ঘুম থেকে উঠে নাই কিংবা এমন কোনো ক্যামেরাম্যান দুনিয়ার মধ্যে বইসা নাই যে Dhruv Rathee ঠিক কখন ঘুম থেকে উঠবে আর সেটাকে আমি ক্যামেরাবন্দি করবো এইজন্য বইসা আছে! সে আসলে এখানে ফেক করছে তার ঘুম থেকে ওঠাটা, আসলে সে আগেই ঘুম থেকে উঠছে।

Casey Neistat সকাল বেলা তার ব্যাগ থেকে বের হয়েছে এবং এটাকে তিনটা ক্যামেরা অ্যাঙ্গেল থেকে আলাদা আলাদাভাবে দেখানো হইসে,কিন্তু আসলে এখানে তিনটা ক্যামেরা ছিল না।

ক্যামেরা আসলে একটাই

সে একই টেক তিনবার করছে যাতে বুঝা যায় এখানে আসলে তিনটা আলাদা আলাদা ক্যামেরা ছিল। এটা বুঝতে পারবেন থার্ড টেক এর সময় সেকেন্ডে টেক যে জায়গায় ক্যামেরা বসায় নেওয়ার কথা ছিল, ঐযায়গায় কোনো ক্যামেরা নাই।

এই যে ভ্লগাররা নিজেদের লাইফকে Raw & Real ভাবে আপনাদের ইউটিউব স্ক্রিনের সামনে প্রেজেন্ট করার চেষ্টা করে, এইটাই কিন্ত আপনাদেরকে ইউটিউব এর মধ্যে Vlogging দেখতে অনেক বেশি উৎসাহিত করে, যেটা টিভি মিডিয়া কিংবা মুভি বা নাটক থেকে ভিন্ন। এখানে একটা অ্যামেচার অ্যামেচার ভাব আছে, দেখলে মনে হয় আসলে এইখানে খুব বেশি ডিরেকশনের কাজ নাই, খুব বেশি স্ক্রিপ্টিং এর কাজ নাই, সে জীবনে যেইভাবে চলতেছে ঠিক সেইভাবেই এটার মধ্যে প্রেজেন্ট করার চেষ্টা করছে। এই জিনিসটার নাম হচ্ছে অ্যামেচারিজম(Amateurism)। কিন্তু মনে রাখবেন এইখানে আসলেই যে সে পুরা লাইফের Raw & Real portion টাই তুলে ধরছে, ব্যাপারটা এরকম না। এই পুরাটা জিনিসটাই স্ক্রিপ্টেড হইতে পারে! একটু মাথা খাটাইতে হয় আসলে সবাইকে যেকোনো জায়গাতেই হোক। পুরাপুরি একজন অ্যামেচার আইসা আপনাকে ক্যামেরাবন্দি করে মোমেন্ট গুলা দেখাইতেছে তাইলে আপনি জীবনেও দেখবেন না! এইটার পিছনে প্ল্যান আছে, এই যে ওরা আসলে অ্যামেচারিজম দেখাইতেছে, কিন্তু আসলে জিনিসটা অ্যামেচার না বা ওদের একটা প্রফেশনালিজমের ছাপ আছে, এই অ্যামেচারিজম কে বলা হয় ক্যালিব্রেটেড অ্যামেচারিজম(Calibrated Amateurism) এবং এটা প্রত্যেক ভ্লগারই করে। তারা তাদের লাইফে অ্যামেচারিজম বা অ্যামেচার ভাবটাকেই  আপনাদের সামনে ক্যালিব্রেটেড কিংবা একটা পরিকল্পিত উপায়ে দেখানোর চেষ্টা করে যাতে আপনি ভ্লগটা দেইখা মজা পান! বুইঝা গেলেন ক্যালিব্রেটেড অ্যামেচারিজম কী জিনিস!

 

এইযে আমি ইউটিউবে আপনাদের সামনে ভিডিও বানাই, মোটামুটি ১০/২০ জন মানুষ আমাকে চিনে, এইযে আমি একটু হালকা হালকা সেলিব্রিটি হওয়া শুরু করছি, এটাকে রিসার্চ এর ভাষায় বলা হয় মাইক্রো সেলিব্রেটি। যেকোনো ইনফ্লুয়েনসার বলেন, ভ্লগার বলেন, ইউটিউবার বলেন, এরা প্রত্যেকেই হচ্ছে এক একজন মাইক্রো সেলিব্রেটি সেলিব্রেটি। মানে পুরাপুরি সেলিব্রেটিও না আবার একেবারে মানুষ চিনেও না ব্যাপারটা এরকমও না।এমন একটা পৃথিবী ভবিষ্যতে আমরা চিন্তা করতেছি, যেখানে Shehwar & Maria, Petuk Couple, Khudalagse এই প্রত্যেক কাপলের একটা করে বাচ্চা আছে। আমরা সবাই কিন্তু খুবই ইন্টারেস্টেড এই বাচ্চাটা যখন Vlog এ আসবে তখন ভ্লগটা কত সুন্দর হবে দেখতে কতটা ইন্টারেস্টিং হবে দেখতে! এই যে বাচ্চারা যারা এখনই অলরেডি সেলিব্রেটি, যারা হয়তো ভবিষ্যতে আসবে কিন্তু তার আগে থেকেই তাদেরকে নিয়ে অনেক জল্পনা-কল্পনা শুরু হইছে এদেরকে বলা হয় মাইক্রো মাইক্রো সেলিব্রেটি। অর্থাৎ মাইক্রো সেলিব্রেটিদের যে ছেলেমেয়েরা ওদেরকে দুইবার মাইক্রো সেলিব্রেটি আমরা বলতেছি। এরকম কিন্তু শুধুমাত্র মাইক্রো সেলিব্রেটিদের ছেলেমেয়েরাই হয় এমন না। সাইফ আলী খান(Saif Ali Khan) এবং কারিনা কাপুরের(Kareena Kapoor) ছেলে যে তৈমুর খান(Taimur Khan)

কিংবা ঐশ্বরিয়া রায় বচ্চন(Aishwarya Rai Bachchan) ও অভিষেক বচ্চনের(Abhishek Bacchan) মেয়ে আরাধ্যা রায় বচ্চন(Aradhya Rai Bacchan),

এরা সবাই কিন্তু এক একজন সেলিব্রেটি, কিন্তু যদি মাইক্রো সেলিব্রেটির সন্তান হয় সেটাকেই শুধুমাত্র আমরা বলতেছি মাইক্রো মাইক্রো সেলিব্রিটি।

 

এই বাচ্চাদেরকে যখন ভ্লগে নিয়ে আসা হবে তখন খেয়াল রাখবেন ওরা যে কোনো কাজ করতেছে, মনে করেন খেলনা দিয়ে খেলতেছে, তারা হাসি তামাশা করতেছে, দৌড়াদৌড়ি করতেছে, এই প্রত্যেকটা জিনিসের কিন্তু একটা Monetary Value আছে। এইগুলো অনেক মানুষকে ভ্লগটা দেখতে উৎসাহিত করতেছে, মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ আনতেছে। এই ভিউয়ের কারণে তারা টাকা পাইতেছে। সুতরাং একটা বাচ্চাকে যখন ভ্লগে আনা হয় তখন ঐ বাচ্চাটা কাইন্ড অফ একটা  শ্রমিকের মতন কাজ করে। সে তার দৈনন্দিন জীবনের কাজকর্মগুলাই করতেছে কিন্তু এর মাধ্যমে বিশাল অংকের একটা টাকা তার ফ্যামিলি অর্থাৎ তার বাবা-মা কিন্তু পাইতেছে। এই যে সে একটা Labor দিতেছে, এইটাকে বলা হয় Digital Labor, কারণ সে ডিজিটালি এই জিনিসটা করতেছে। সম্পুর্নভাবে বললে এটাকে বলা হয় অনলাইন ডিজিটাল লেবার(Online Digital Labor)। অর্থাৎ একজন ভ্লগারের ছেলে বা মেয়ে যখন পিচ্চি হিসেবে ভ্লগের ভিতরে ঢুকবে, তখন তারা কাইন্ড অফ একজন দিনমজুর যেরকমভাবে কাজ করে টাকা আনে,তারা অনলাইন ডিজিটাল লেবার দেওয়ার মাধ্যমে তাদের বাবা-মা কিংবা ফ্যামিলির জন্য টাকা আনতেছে।

 

চারটা জিনিস আপনারা এতক্ষণে বুইঝা গেলেন; ক্যালিব্রেটেড অ্যামিচারিজম কী, মাইক্রো সেলিব্রেটি কী, মাইক্রো মাইক্রো সেলিব্রেটি কারা এবং অনলাইন ডিজিটাল লেবার কী জিনিস!

 

বর্তমান ওয়ার্ল্ডে আপনার এটেনশান আমি কতক্ষণ ধরে ধরে রাখতেছি, এইটার কিন্তু একটা বিশাল বাজারমূল্য আছে। আপনি কতক্ষণ ধরে ভিডিও দেখেন, এইটার উপরে নির্ভর করবে অডিয়েন্স রিটেনশন টাইম(Audience Retention Time) কতক্ষণ হবে এবং এর উপরে ডিপেন্ড করবে আপনাকে ইউটিউব কয়টা অ্যাড দেখাইতে পারবে এবং সেইখান থেকে আমি একটা টাকা পাবো। তার মানে এখানে আপনার মনোযোগ একটা Commodity বা পণ্যের মতো কিন্তু আচরণ করতেছে। আপনার মনোযোগ আমি নিতেছি এবং সেটা ইউটিউব এর কাছে বিক্রি করতেছি। ইউটিউব সেটা আবার অ্যাডভার্টাইজারদের কাছে বিক্রি করতেছে। এভাবে আমি কিংবা ইউটিউব কিন্তু টাকা পয়সা পাইতেছি।এই যে এমন একটা অর্থনীতি যেখানে আপনার অ্যাটেনশন আসলে একটা পণ্যের মত কাজ করে যেটাকে চাইলে বিক্রি করা যায়, এই ইকোনমি বা অর্থনীতিকে বলা হয় অ্যাটেনশন ইকোনমি(Attention Economy)। এখন Couple Vlogging এর ক্ষেত্রে এই অ্যাটেনশন ইকোনমির ব্যাপারটাকে একটু ভালো মতোন চিন্তা করেন, ওইখানে কাপলদের মধ্যে যে রিলেশনশিপটা আছে (বৈবাহিক সম্পর্ক বলেন কিংবা নরমাল যে রিলেশনশিপ বলেন) এইটাই কিন্তু ভ্লগের মধ্যে তাদের ভিউ এনে দিতেছে। অর্থাৎ যেরকমভাবে আমি আমার এনালাইসিস কিংবা Explanatory Power দিয়ে আপনাদের অ্যাটেনশন ধরে রাখতেছি(*ভুয়া কথা), Couple Vlogging এ কাপলদের মধ্যে রিলেশনশিপটা আসলে আপনাদের অ্যাটেনশন ধরে রাখতেছে। অর্থাৎ এইখানে কাপলদের রিলেশনশিপটাও কিন্তু একটা Commodity বা পণ্য হিসেবে আচরণ করতেছে, যার মাধ্যমে কাপলরা টাকা পায়।

এইখানে কী পরছো এইটা?
হি হি হি

 

লক্ষ্য করলে দেখবেন, অ্যাটেনশন ইকোনমির এইজায়গাটাতে আপনার সম্পর্ক যখন একটা প্রোডাক্ট এর মতন বিক্রি হইতেছে, অর্থনীতির স্বাভাবিক যে ডিমান্ড অ্যান্ড সাপ্লাই এর সূত্র সেটা কিন্তু এখানে কাজ করবে। মানুষ প্রতিদিন বইসা আছে, লক্ষ লক্ষ মানুষ, আপনি তাদেরকে আপনার রিলেশনশিপ বা এই ভ্লগের ব্যাপারটাকে সাপ্লাই দিবেন। তাদের ডিমান্ড আছে, যদি কোনো সময় সাপ্লাই এ ভাটা পরে, তাইলে কিন্তু তারা আর আপনার কাছে আসবে না, তারা অন্য কোনো দোকানে যাবে অর্থাৎ অন্য কোনো কাপল ভ্লগারের কাছে যাবে যে তাদেরকে এই জিনিসটা সাপ্লাই দিতে পারবে। আর যদি আপনি সাপ্লাই দিতে না পারেন তাহলে আপনার প্রফিট আসবে না।আপনাদের দুজনের মধ্যে সম্পর্ক যত খারাপই থাকুক না কেন, আপনাকে নিয়মিত একটা ভ্লগ আপলোড দিতে হবে, দেখাইতে হবে আপনাদের জীবনের মধ্যে কী চলতেছে, কারণ আপনাদের সম্পর্কের উপর নির্ভর করতেছে আপনি বাড়ি ভাড়া দিতে পারবেন কিনা কিংবা আপনার সন্তানের স্কুল ফিটা দিতে পারবেন কিনা! যার ফলে অনেক সময় এমন হইছে কাপল ভ্লগিংয়ের কারণে অনেক কাপলের মধ্যে সম্পর্ক নষ্ট হয়ে গেছে এবং কাপল ভ্লগিংটা আলটিমেটলি তাদের ডিভোর্সে রূপ নিয়েছে

এরকম দুইটা এক্সাম্পল আমি আপনাদেরকে দিবো।

1. David Dobrick and Liza Coshy breakup 2018

2. Jesse Wellens and Jeana Smith

ভাই একটু দাড়ান, এইখানে ২টা জিনিস মাথায় রাখতে হবে।

১.এই ব্রেকআপ গুলোর পিছনে আসলে যে শুধুমাত্র, আবারও বলি শুধুমাত্র কাপল ভ্লগিংই দায়ী ব্যাপারটা কখনোই এরকম না, আরো অনেকগুলা ফ্যাক্টর এখানে কাজ করতে পারে।

২. কাপল ভ্লগিং এর বিরোধিতা করা কখনোই এই লেখার উদ্দেশ্য না। এবং যেই কারণে আমি এখন আপনাদের মুদ্রার অন্য পিঠও দেখাবো যেখানে কাপলরা কাপল ভ্লগিং এর মাধ্যমে কাপলরা নিজেদের রিলেশনশিপটা অনেক ভালোভাবে মেনটেন করতে পারতেছে, এমনকি তাদের অনেক ব্যস্ত সময় কাটাতে হয় সোশ্যাল মিডিয়াতে ফ্যানদের সাথে Gossiping এ কিংবা স্পনসরদের সাথে ডিল করা নিয়ে। তারপরও তারা পাওয়ার কাপল কিংবা সুপার কাপল হিসেবে বাস্তব জীবনে অনেকবেশি সফল। এর এক্সাম্পল কী হইতে পারে! কারা অ্যান্ড ন্যাট (Kara and Nate), ফ্লায়িং বিস্ট(Flying Beast), মুম্বাইকার নিখিল(Mumbiker Nikhil), শেহওয়ার অ্যান্ড মারিয়া(Shehwar & Maria), জোবায়ের (Xobaer), ধ্রুব রাঠি অ্যান্ড জুলি(Dhruv Rathee Vlogs), That GLAM COUPLE, রেজা অ্যান্ড পূজা খান(Reza & Puja Khan) এবং আরো অনেকে।

আমার মনে হয় আপনারা এই লিস্টটা আমার চেয়ে আরো বেশি ভালো বানাইতে পারবেন! এবং ব্রেকআপ হইছে এরকম কাপলের চেয়ে ব্রেকআপ হয় নাই এইরকম কাপলের সংখ্যাই অনেক বেশি হবে। তাই এইটার দুই পক্ষেই আসলে লজিক আছে।

 

এখান থেকে আমি আপনাদেরকে একটু প্রশ্নটা ঘুরায় নেই, অনলাইনে কাপলদের দেখলে আপনি কেন আসলে ভালো ফিল করেন? এই প্রশ্নটার উত্তর একজন ইউটিউবার যার নাম MeetingSkylar, ও ভিউয়ার হিসেবে একটা অপিনিয়ন দিছে,

ওর খুব প্রিয় ছিল Shannon and Cammie(nowthisisliving), ওদের ব্রেকআপ হইছিল পরে ও এই ইমেইল টা করছিল, “ওদের প্রতিটা ভিডিওতে এমন ছোট ছোট কিছু জিনিস ছিল যেটা আমাকে কনভিন্স করতো ‘Love is real’। মানুষ যখন কোনো রিলেশনশিপ এর মধ্যে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে সেটা রিয়েল লাইফে হোক কিংবা না হোক, এটা কিছুটা সময় এই জন্য যে আমরা আমাদের নিজেদের লাইফে যেটা মিস করতেছি সেটা অন্যদের লাইফে খোঁজার চেষ্টা করি। আমরা তাদের ভালোবাসাটা দেখি, তাদের মধ্যে কেমিস্ট্রিটা দেখি এবং এইটা আমাদের হৃদয়কে অনেক বেশি পুলকিত করে।

কাজেই যখন ওই হ্যাপিনেস বা সুখের উৎসটা ধ্বংস হয়ে যায় এই ব্যাপারে কোনোই সন্দেহ নাই যে তাদের ফ্যানরা প্রচন্ডভাবে ডিপ্রেসড বা হতাশা করে।” Amy Horton নামের একজন ব্লগার আছে

তিনি এই স্যাটিসফ্যাকশন বা সন্তুষ্টিকে  বলতেছেন “Vicarious Satisfaction” অর্থাৎ অন্যকে satisfied হইতে দেখে বা অন্যের ভালোবাসা দেখে আমি নিজে স্যাটিসফ্যাকশন বা সন্তুষ্টি পাইতেছি।

 

AF mane ki ami jani naa😐

এরকম ভিকারিয়াস ফিলিংস এর কথা কিন্তু এর আগেও আমি বলছিলাম। Melissa Dahl নামে একজন লেখিকার একটা বই আছে, “Cringeworthy : A Theory of Awkwardness”, এইখানে উনি একটা থিওরি বলছিলেন যেটা দিয়ে ব্যাখ্যা করা যায় মানুষ কেন টিকটক বা লাইকির এত ক্রিঞ্জ ভিডিও এতটা অকওয়ার্ড হলেও সারাক্ষণ ধরে দেখতে থাকে!

Cringeworthy : A Theory of Awkwardness

এইটা উনি Argue করছিলেন, ওইখানে একজন মানুষ নিজেকে নিজে Embarrassed বা লজ্জিত করতেছে, উল্টাপাল্টা কাজ করতেছে টিকটক কিংবা লাইকির মধ্যে, এইটার জন্য ওই মানুষটার প্রতি আপনার একটা মায়া জন্ম নেয়। আপনি নিজেকে তার জায়গায় চিন্তা করেন। তার প্রতি এম্প্যাথি মায়া সহানুভূতি ফিল করেন। এন্ড এইটাই আপনাকে টিকটক ভিডিও শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নিয়ে যায়। যদিও এইটা দেখার মতন রেশনালি যোগ্য কোনো কিছু না। কিন্তু আপনি সেটা দেখা থামাইতে পারেন না কারণ হচ্ছে এটাকে বলে Vicarious Embarrassment অর্থাৎ অন্যের এম্বারাসমেন্টটা দেইখা আপনি নিজের মধ্যে একটা মায়া ফিল করতেছেন। ঠিক সেইম কারণে সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে এত এত নেগেটিভিটি থাকে। একজন আরেকজনরে গালি দিতেছে, এ ওর সাথে ঝগড়া করতেছে। এই নেগেটিভিটি গুলোর মধ্যে আপনি যখন অল্প একটু পজিটিভিটি এই ভ্লগগুলার মধ্যে দেখতে পান, আপনার কাছে ওইটাই এতটা হৃদয় বিগলিত করা মনে হয় যে আপনি ওইটাকে সারাক্ষণ দেখতেই থাকেন তো দেখতেই থাকেন।

(র‍্যান্ডম পিপল: স্যার, আরেকটা বিজ্ঞান গ্রুপে আপনাকে নিয়া ক্যাঁচাল শুরু হইসে, আপনি নাকি নিকোলা টেসলারে ভালো বলছেন কি না কি নাকি, ঐটা নিয়া গেঞ্জাম লাগছে।

এনায়েত: তাই নাকি,চলতো দেখি!

একে গাধার পিঠে তুলে গ্রামের বাইরে বার করে দিয়ে আয় -_- )

 

প্রশ্ন হইতেছে, এতটা পজিটিভিটির ভিতরেও যারা কাপল ভ্লগারদের দেখতে পারে না তারা আসলে কেন দেখতে পারে না? এই ব্যাপারে আমি আপনাদেরকে Crystal Abidin এর একটা রিসার্চ সম্পর্কে পরিচিত করাব।

আর কতক্ষণ এনার দিকে তাকায়া থাকবেন? এখন নিচের লেখাও পড়েন যান তো…

এই Crystal Abidin হচ্ছে আমার লেখায় আসা দ্বিতীয় মানুষ Marwa Elselehdar এর পরে, যেই মানুষটা আপনার দৃষ্টি আমার থেকে সরায়ে তার নিজের দিকে নিয়ে গেছে এবং আপনি এখনো তার দিকেই তাকায়া আছেন। কোনো সমস্যা নাই আজকে ঈদের দিন দেইখা আমি আপনাকে মাফ করে দিলাম নইলে হয়তো আমি আপনাকে 420 ধারায় শাস্তি দিতাম।

ক্রিস্টাল আবিদীন যেটা করছে, উনি ফ্যামিলি ইনফ্লুয়েন্সার বা ফ্যামিলি  ভ্লগারদের ছয়টা এমন এমন Domestic Filler  ডিটেক্ট করছে, যেটা দিয়ে ওরা ওদের সবগুলা Vlog ডিসাইড করে

 

১. ডেভেলপমেন্টাল মাইলস্টোনস(Development Milestones)

মনে করেন একজন কাপল আরেকজন কাপলকে তাদের অ্যানিভার্সারির মধ্যে কোনো একটা পুরষ্কার দিতেছে কিংবা সারপ্রাইজ দিতেছে, এইগুলা কিন্তু কাপল ভ্লগিং এর এক একটা  ডেভেলপমেন্টাল মাইলস্টোন, এই মাইলস্টোনগুলা উপলক্ষে তারা একটা করে ভ্লগ হয়তো পাবলিশ করে। তারা কোনো বিয়ের পার্টিতে যাইতেছে, তাদের কোনো ফ্রেন্ডের অ্যানিভার্সারি কিংবা জন্মদিন হইতেছে; সেই উপলক্ষে ভ্লগ আসতেছে, সো এইটা একটা জিনিস।

২. ফ্যামিলি অকেশনস(Family Occasions)

কাপল ভ্লগাররা এই উপলক্ষেও তাদের ভ্লগ দিবে। ঈদের দিন, পহেলা বৈশাখে তারা ঘুরতে গেছে, কিংবা কোনো স্পেসিফিক রিলিজিয়াস বা ন্যাশনাল উৎসব হইতেছে এইগুলা উপলক্ষে তাদের ভ্লগ আসবে।

৩. এটাকে উনি বলতেছেন এরান্ডস(Errands)

এখানে ওরা খুব র‍্যানডমলি পরিবারের বিভিন্ন জিনিস নিয়ে কথা বলতেছ।যেমন, পরিবারের মধ্যে কিছু না কিছু একটা হইতেছে, ক্যামেরা মাউন্ট করা আছে একটা কোনার মধ্যে এবং ওইখানে ভিডিও করা হইতেছে। আসলে কি চলতেছে এই জায়গাটাতে? হয়তো তারা একসাথে দুপুরের খাবার খাইতেছে কিংবা রাতের খাবার খাইতেছে অথবা কোনো স্ন্যাক টেস্ট করতেছে। এগুলা তাদের এক একটা ভ্লগের উপাদান হইতে পারে।

৪. জিনিসটা হচ্ছে কনফেশনস(Confessions)

এখানে ধরেন, কাপলরা একজন আরেকজনের সম্পর্কে কোনোকিছু কনফেস করে, যে তার কোন জিনিসটা তার ভালো লাগতো, কিংবা কোন জিনিসটার প্রতি সে রাগ করতো! এই জিনিসগুলা রিভিল করা নিয়ে এক একটা ভ্লগ হইতে পারে।

৫. রিয়েকশনস(Reactions)

কাপলরা একসাথে মিলে কোনো একটা স্পেসিফিক ভাইরাল ঘটনার প্রতি রিয়েক্ট করবে। যেমন ধ্রুভ রাঠী আর জুলি কয়েকদিন আগে K.G.F. Chapter 2 এর ট্রেইলারের উপর রিয়েকশন দিছিলো এবং ওইটার পরে অনেক গন্ডগোল হইসে, মানুষজন থ্রেট পর্যন্ত দিসে ধ্রুব রাঠি ও তার গার্লফ্রেন্ড কে!

৬. লজিস্টিকস(Logistics)

যেখানে ওরা Q&A সেশন করে কিংবা AMA(Ask Me Anything) টাইপ এর জিনিস করে। দর্শকরা তাদেরকে কিছু প্রশ্ন করে এবং তারা সেই প্রশ্নের উত্তর দেয়। এখন একটু চিন্তা করে দেখেন, এই ছয়টা টাইপ এর ভিডিও ছাড়া কাপল ভ্লগারদেরকে আপনি অন্য কোনো টাইপ এর কি ভিডিও দিতে দেখবেন? সাধারণ হিসেবে আপনি কিন্তু দেখবেন না, আপনি যেকোনো কাপল ভ্লগারের যেকোনো কয়টা ভিডিও নেন, দেখা যাবে আপনি যেকোনো ভিডিওকে এই ছয়টা ক্যাটাগরির যেকোনো একটা ক্যাটাগরিতে ফেলায় দিতে পারবেন। এই কারণে যে সমস্যাটা হয়, কাপল ভ্লগারদের ভিডিও অনেকাংশেই প্রেডিক্টেবল থাকে। যারা ইউটিউব ভিডিও আসলে নিয়মিত দেখে, তারা কোনো একজন কাপল ভ্লগারের ভিডিও শুরু হইলেই বুইঝা যাইতে পারে ঠিক নেক্সট মোমেন্টে এই কাপল ভ্লগার কী করতে চাইতেছে!কারণ অলরেডি এই ভিউয়ার অন্য একজন কাপল ভ্লগারের ভ্লগের মধ্যে ঠিক সেইম জিনিসটাই দেইখা আসছে। এইযে আপনার কনন্টেট যখন প্রেডিক্টেবল হয়ে যাবে এটলিস্ট বাংলাদেশের ইউটিউব কমিউনিটির মধ্যে, তখন আপনার কনটেন্টকে একটা লো ক্লাস কনটেন্ট হিসেবে ধরা হবে তার কারণ ভিউয়ার আগে থেকেই প্রেডিক্ট করে ফেলতে পারতেছে আপনি কী করতে যাইতেছেন!

 

একজন স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান একটা লাইন থেকে পরবর্তীতে কী পাঞ্চ লাইন দিবে, সেটা যদি আপনি আগেই প্রেডিক্ট করতে পারেন, তাইলে কিন্তু আপনি ওই স্ট্যান্ডআপ কমেডিয়ান এর কৌতুকটা শুনে কোনোদিন মজা পাবেন না। ঠিক একইভাবে,কোনো কাপল ভ্লগারের ভিডিওতে সামনে কী আসতে যাইতেছে, সেটা যদি আপনি আগে থেকেই বুঝতে পারেন, তাহলে এটা দেখতেও আপনার ভালো লাগবে না কেননা প্রত্যেকটা কাপল ভ্লগার বারবার একই কাজ কইরা যাইতেছে, এইটা কিন্তু আপনার দেখতে ভাল্লাগবে না। মানুষ যখন দেখে একজন কাপল ভ্লগার একটা ভিডিও বানাইছে যেখানে তার বিদেশি বউ বাংলা বলতে পারে কিনা সেটা টেস্ট করতেছে, প্রত্যেক কাপল ভ্লগার যদি একই কাজ করে যার একজন বিদেশী বউ আছে, তখনি কিন্তু মানুষ ইরিটেটেড ফিল করবে। কারণ শুধুমাত্র আলাদা দুইজন মানুষ একই কাজ করতেছে দেইখা সেটাকে মানুষ দেখবে ব্যাপারটা কখনোই রকম না। এবং আরেকটা জিনিস যেটা অনেক মানুষ যদি ওইটা দেখেও, তারা তাকে ওভাররেটেড ভাবে তার কারণ অনেক মানুষ বুঝতে পারতেছেনা যে এই ভ্লগগুলো রিপিটেটিভ হয়ে যাইতেছে এবং যেহেতু বেশিরভাগ মানুষের এইটা ধরার মতো সক্ষমতাও নাই যে এটা রিপিটেটিভ হইতেছে, মানুষ ওই ইউটিউব অডিয়েন্সকে ঘৃণা করা শুরু করে যারা একটু আপার লেভেলের ইউটিউব অডিয়েন্স যারা ওই জিনিসগুলো ধরতে পারে বা যাদের ইন্টালেকচুয়াল অ্যাবিলিটি অন্য গড়পড়তা ইউটিউব ভিউয়ারদের থেকে আরও অনেক উপরের লেভেলের। এই হচ্ছে কাপল ভ্লগারদের ঘৃণা করার অনেক বড় একটা রিজন।

 

ইভেন যদি আপনি কাপল ভ্লগারদেরও বাদ দেন, সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে যেকোনো কাপলদেরকে আপনি দেখবেন, অনেকক্ষেত্রেই ইভেন এই কোয়ারেন্টাইন এর মধ্যেও কিন্তু সিঙ্গেল মানুষ আর কাপলদের মধ্যে ডিভিশনটা অনেক বাড়ছে।

Lizzie Logan নামে ২৮ বছর বয়সী একজন নিউইয়র্কার বলতেছে, “If you’re so damn happy together, get off the internet and……..🤐”

কীসব যে বলে

Bella DePaulo নামে একজন সোশাল সাইন্টিস্ট যিনি “Singled Out” বইটার Author, উনি বলতেছেন, সিঙ্গেল পিপলরা যখন নিজেরা এই কোয়ারেন্টাইনের মধ্যে লোনলি ফিল করতেছে তখন সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে যখন তারা এই কাপলদের এই ভিডিওগুলা দেখে কিংবা ছবি দেখে তারা ওইটাকে অটোমেটিকভাবে ঘৃণা করা শুরু করে কারণ তারা নিজেদের লাইফে ওইটা মিস করতেছে।

এইটার আসলে উল্টা লজিকও খাটে, তারা যেহেতু এটা মিস করতেছে ওইটা দেখার পর ওরা স্যাটিসফেকশনও পায় যেটা আমি একটু আগে ব্যাখ্যা করছি। আরেকটা বিষয়, অনেক সময় এই কাপলরাই  সিঙ্গেল পিপলদেরকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা শুরু করে আর ভাবে যেকোনো সিঙ্গেল মানুষের লাইফ আসলে মিজারেবল, তাদের লাইফে আসলে কিছু করার নাই এবং এই কারণে তারা বইসা আছে এবং কিছু করতেছে না। এইটাও সিঙ্গেল মানুষজন কেন কাপলদেরকে আসলে হেইট করে, তার বেশ বড় একটা কারণ।

শুরুতে বাংলাদেশের দুইটা কাপল ভ্লগারদের নিয়ে যে রিসার্চটা, সেটা আলিফ করছিলো। এখন লাবিদের রিসার্চটা বলতেছে নন মাইক্রো সেলিব্রেটি যেই কাপলরা আছে, যেমন মনে করেন মেগান মার্কেল(Meghan Markle) এবং প্রিন্স হ্যারি(Prince Harry) কিংবা বারাক ওবামা(Barack Obama) ও মিশেল ওবামা(Michelle Obama), এই কাপলদেরকে মানুষ আসলে কেন পছন্দ করে!এটার কারণটা একই, কিন্তু একটা গুরত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর হচ্ছে ও এগারোটা কাপলের উপরে এনালাইসিস করছে,

যার পাঁচটা কাপল হচ্ছে শোবিজ কাপল(Showbiz couples) আর বাকিরা হচ্ছে নন শোবিজ কাপল (Non Showbiz couples)। একটা ট্রেন্ড দেখা গেছে যে, শোবিজ কাপলরা সাধারণত নন শোবিজ কাপলদের থেকে সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশি ফলোয়ার কিংবা সাবস্ক্রাইবার পায় যেটার পরিমাণটা শোবিজ কাপলদের ক্ষেত্রে প্রায় 282 মিলিয়ন, অপরদিকে নন শোবিজ কাপলরা প্রায় 102 মিলিয়নের মতো পেয়ে থাকে। অনেকক্ষেত্রে দেখা যায়, এই কাপলদের ভেরিফাইড ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট পর্যন্ত নাই কিন্তু তারপরেও তারা সোশ্যাল মিডিয়াতে ট্রেন্ডি থাকে, হ্যাশট্যাগ তাদেরকে নিয়ে অনেক বেশি পরিমাণে দেওয়া হয়। এর একটা এক্সাম্পল মেগান মার্কেল এবং প্রিন্স হ্যারি।

আমরা ফেসবুক আর ইউটিউব এর মধ্যে দুইটা পোল খুলছিলাম যেইখানে আপনারা কোন কাপলকে পছন্দ করেন সেটা সিলেক্ট করতে বলছিলাম! বাঙালি জাতি যেহেতু অনেক পরিশ্রমী জাতি সে কারণে একদম উপরে যে কাপল আছে, তাকে তারা সবচেয়ে বেশি পরিমাণে ভোট দিছে।নিচে যে see more এ আরো কয়েকটা কাপল আছে তাদেরকে ভোট দিতে যাবে, এটা দেখেনাই।এন্ড এই ট্রেন্ডটা যে আসলেই সত্যি এটা আপনি দেখবেন উপর থেকে নিচে ক্রমান্বয়ে পার্সেন্টেজটা কমতেছে তার কারণ মানুষ আসলে একদম উপরে যারা আছে তাদেরকেই শুধুমাত্র ভোট দিসে খুব ইজিলি বলা যায় এই জায়গায়। এইজন্যে এই পোল দুইটার রেজাল্ট নিয়ে কিন্তু আমরা আমাদের রিসার্চ এর মধ্যে খুব বেশি কিছু বলি নাই।

 

ওকে,ঈদের দিন মিম রিভিউ না দিলে কোনোভাবেই এইটা জাস্টিফাইড হয় না!

FAHIMFAISHAL:

(1)

আপনাদেরকে একটা জিনিস দেখাই আমি!

🙂

 

MechanicGeneral2691: 

(2)

ছবিটা কিন্তু ভালো বানাইসে! অনেকে বলতেছিলো এইখানে আমাকে দেখতে নাকি নিয়ানডার্থালদের(Neanderthal) মতো লাগতেছে। এই ওয়ার্ডটা আমি প্রথম শুনছিলাম The Big Bang Theory এর যে Theme song ওইখানে।

bhosdiwale_chacha69:

(3)

এটা তো আমি আগেই বলেছি, নিকোলা টেসলা ছাড়া আমার আর আমার মাইক স্ট্যান্ড এর মধ্যে যে ভালোবাসা, সেটা বোঝার সামর্থ্য অন্য কারো নাই। টেসলারে নিয়ে কথা বলছি, এখন আবার আমাকে নিয়ে কেউ পোস্ট দিবে না তো!

 

আজকে এই পর্যন্তই! থ্যাংকস টু আলিফ আরশাদ এন্ড লাবিদ রাহাত। আলিফ আরশাদ আমার সাথে কাজ করতেছে কারণ তার ফেসবুকে বেশি বেশি ছেলে এবং মেয়ে উভয়ই ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট দিতে পারে। সে এটাতে খুব ভালো ফিল করে।

Alif Arshad: https://www.facebook.com/alif.arshad.b

লাবিদ রাহাত এর একটা চ্যানেল আছে V-gull & History নামে। আপনারা ওইখানে ম্যাপ এনিমেশনের অনেক কিছু দেখতে পারেন। এর আগের দিনের ভিডিওতে এই চ্যানেলটার খুবই প্রশংসা করছে অনেকেই। ওদের দুইজনকেই আমার অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আজকে ঈদের দিন ভিডিও আপলোড হইছে, আশা করি এতক্ষণে আপনারা বেশ ভালো একটা ঘুম দিয়ে উঠছেন এবং রেস্ট নিতেছেন। গত সপ্তাহে এই পোস্টটা আপলোড দিতে পারি নাই তার কারণ এই রিলেটেড পর্যাপ্ত কোয়ান্টিটেটিভ ডেটা নাই। আপনি দেখেন আমি কিন্তু কথা বলতেছি আমার নিজের ডেটা দিয়ে, আমি নিজে এনালাইসিস করসি কিংবা ক্রিস্টাল আবিদীনের একটা পেপারই মোটামুটি পাইসি। তা ছাড়াও আরো অনেক পেপার আছে বাট বেশিরভাগই নিউজ আর্টিকেল। আমি প্রাইমারি রিসার্চ খুবই কম পাইছি। এই জায়গাটাতে আপনি চাইলে নিজেই এখন রিসার্চ করে জার্নালে পাবলিশ করতে পারেন। এত ডেটার অভাব, ডেটা  খুঁজতে খুঁজতে আমার জান বের হয়ে গেসে।পরে মোটামুটি যা কিছু পাওয়া গেসে, পরে যা কিছু পাওয়া গেছে ঐটা নিয়েই মোটামুটি এই কনটেন্টটা বানানো হইসে। আমি আশা করি এই কনটেন্টটা পড়ে আপনারা মজা পাইসেন। ভিতরের অনেক জিনিস বুঝতে পারছেন কাপল ভ্লগিং এর যেটা আমি আশা করবো কাপল ভ্লগারদের নিজেদেরকেও অনেক হেল্প করবে। আমি আগেই বইলা দিতেছি, কাপল ভ্লগিংয়ের কোনো বিরোধিতা আমি করতেছি না যেখানে আমি রোস্টিং নিয়ে লেখাটার মধ্যে আসলেই আমি রোস্টিং ভিডিওর বিরোধিতা করছিলাম। আমি বলতেছিনা যে কাপল ভ্লগারদের কাপল ভ্লগিং বন্ধ কইরা দেওয়া উচিত! জাস্ট ভ্লগিং এর ভিতরকার কিছু সাইন্টিফিক জিনিস আপনাদের সামনে তুলে ধরা! সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন, ঈদের সময় মজা করবেন ,আল্লাহ হাফেজ এবং সবাইকে ঈদ মুবারক।

আজকের লেখার যাবতীয় রিসার্চ ও ভিডিওর মূল স্ক্রিপ্ট সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হলো। এই ডেটা যে কেউ চাইলে নিজেদের কাজে ব্যবহার করতে পারেন। আমরা চাই আমাদের ডেটা ব্যবহার করে অন্য কেউ যদি আরো সামনের কোনো কাজ করতে চায় তাহলে যেন তিনি বিনা ঝামেলায় তা করতে পারেন।       গুগল ডকস লিংক

 

পুরা ভিডিও দেখেন ইউটিউবে!

 

Research Affiliates:

Labid Rahat: https://www.youtube.com/channel/UCTio…

Alif Arshad: https://www.facebook.com/alif.arshad.b

For Gaining more knowledge on this topic:-

Kim Kardashian and Kanye West agree joint custody after divorce 

I’m Single AF, But I Actually Love Seeing Happy Couples

Why Some Couples Feel the Need to Show Off Their Relationships

Why people get married or move in with a partner

Why Watching People Break Up on YouTube Is So Addictive

Did couple vlogging on YouTube ruin my relationship?

What it’s really like to be a social media couple traveling the world

#familygoals: Family Influencers, Calibrated Amateurism, and Justifying Young Digital Labor

Viewpoint: Why are couples so mean to single people?

Dating and Relationships in the Digital Age

Singles and Couples Are More Divided Than Ever

David Dobrik and Liza Koshy announce split in emotional video

The reality and pressures of being a YouTube super couple

A NEW CHAPTER

So They Broke up. | Message for the ShaCam Fam

Written by

Girgiti

17 Posts

We're Girgiti. We provide blog managing services to renowned YouTubers. Currently working with Enayet Chowdhury. Hoping to enhance the working area soon.E-mail: [email protected] | Follow us on facebook: Girgiti
View all posts

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *